Urinary Tract Infection

Category: Diseases
26 September, 2016  

Share:  

U3ypgyd মুত্রনালির ইনফেকশন
মুত্রনালির (urinary tract infection, or UTI) ইনফেকশন হছে একধরনের ইনফেকশন যা মুত্রনালির হে কোন অংশে হতে পারে।মুত্রনালির ইনফেকশনের বিভিন্ন নাম হতে পারে। মুত্রনালির কোন অংশে ইনফেকশন হবে তার উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন নাম হয়ে থাকে।
  • মুত্রথলি—মুত্রথলিতে ইনফেকশন হলে তাকে বলে cystitis অথবা bladder infection.
  • কিডনি-- কিডনিতে ইনফেকশন হলে তাকে বলে pyelonephritis অথবা kidney infection.
  • Ureters বা মূত্রনালি—যে কোন একটি কিডনি থেকে মুত্রথলি পর্যন্ত নালী বা Ureter এ ইনফেকশন হবার সুযোগ তুলনামূলক ভাবে
  • Urethra বা মূত্রনালি—ইহা সেই মুত্রনালির ইনফেকশন যা প্রস্রাবকে মুত্রথলি থেকে শরীরের বাহিরে নিয়ে আসে।
মূত্রনালির ইনফেকশনের কারণ হচ্ছে জীবাণু যা প্রথমে urethra দিয়ে শরীরে প্রবেশ করে তারপর মুত্রথলিতে যায় এবং সাধারণত সেখানেই ইনফেকশন করে। এবং পরে কিডনিতে ছড়াতে পারে।
অধিকাংশ সময় শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ইনফেকশন গুলোকে মেরে ফেলতে সক্ষম হয় তবে কিছু অবস্তায় মুরতনালির ইনফেকশন হওয়ার সুযোগ বেড়ে যায়।
মহিলাদের মূত্রনালির ইনফেকশনের সুযোগ বেশি থাকে কারণ তাদের urethra ছেলেদের থেকে ছোট থাকে এবং পায়খানার রাস্তার খুবই কাছাকাছি থাকে।যার ফলে দৈহিক মিলনের পর মহিলাদের ইনফেকশনের সুযোগ অনেক বেড়ে যায়।. Menopause মহিলাদেরও মূত্রনালির ইনফেকশনের সুযোগ বেশি থাকে।

নিম্নোক্ত কারণে মূত্রনালির ইনফেকশনের সুযোগ অনেক বেড়ে যায়
  • ডায়াবেটিকস Diabetes
  • বয়স্ক ব্যক্তি মূলত যাদের Alzheimer's disease এবং delirium রোগ আছে
  • যে সমস্ত ব্যক্তিদের প্রস্রাব করার সমস্যা আছে (urinary retention)
  • catheter পরিহিত রোগীদের।
  • Bowel incontinence
  • Enlarged prostate, মূত্রনালি চিকন থাকলে অথবা প্রস্রাবের প্রবাহ বাধাগ্রস্থ হলে।
  • কিডনিতে পাথর থাকলে Kidney stones
  • অনেকদিন ধরে অসুস্থ অবস্তায় বিছানায় পরে থাকলে যেমন hip fracture)
  • গর্ভবতী
মূত্রনালির কোন অপারেশন হলে লক্ষন সমুহ
  • দুর্গন্ধযুক্ত ঘোলাটে অথবা রক্ত মিশ্রিত প্রস্রাব
  • জ্বর (তবে সবার জ্বর নাও হতে পারে)।
  • প্রস্রাবের সময় ব্যথা বা জ্বলা অনুভূত হওয়া।
  • তলপেটে ব্যথা অনুভূত হওয়া।
  • প্রস্রাবের বেগ বাড়বার হওয়া।
যদি ইনফেকশন কিডনি পর্যন্ত ছড়ায় তবে নিম্নোক্ত লক্ষন সমূহ দেখা দিতে পারে
  • কাঁপুনি দিয়ে জ্বর আসতে পারে এবং ঘাম দিয়ে জ্বর ছাড়বে।
  • অবসাদ গ্রস্থ লাগতে পারে।
  • জ্বর ১০১ ডিগ্রি ফারেনহাইট এর বেশি থাকবে।
  • তলপেটে পিছনে বা কুচকিতে ব্যথা হতে পারে।
  • মানুষিক পরিবর্তন বা দিধাগ্রস্ত হতে পারে। অনেক সময় দিধাগ্রস্ত ভাবই রোগের একমাত্র লক্ষন হতে পারে্
  • বমি অথবা বমি বমি ভাব হতে পারে।
  • প্রচণ্ড পেটে ব্যথা হতে পারে।
পরীক্ষা সমুহ
প্রস্রাবের নিম্নোক্ত পরীক্ষা করা হয়
  • Urinalysis করা হয় শ্বেতকনিকা (white blood cells), লোহিত কনিকা(red blood cells) ব্যাকটেরিয়া(bacteria), এবং কিছু chemicals, যেমন nitrites প্রস্রাবে আছে কিনা।বেশির ভাগ সময়ে ডাক্তার প্রস্রাবের পরীক্ষা দেখেই এই রোগ নির্ণয় করে থাকে।
  • Urine culture and sensitivity : এই পরীক্ষার মাধ্যমে ডাক্তার ইনফেকশনের জন্য দায়ী জীবাণু নির্ণয় করে এবং এর জন্য উপযুক্ত অ্যান্টিবায়োটিক ঠিক করে থাকেন।তবে এই পরীক্ষা অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়া শুরু করার আগে পরীক্ষাটি করতে হবে তা নাহলে পরীক্ষাটি সঠিক হবে না।জদি কেউ অ্যান্টিবায়োটিক খেয়ে ফেলে সেক্ষেত্রে FAN method এই পরীক্ষাটি করতে হবে।
  • এছাড়া CBC এবং blood culture করা যেতে পারে।
উপরের পরীক্ষা গুলো দিয়ে রোগ নির্ণয় করা না গেলে অথবা রোগটা জটিল আকার ধারন করলে নিম্নোক্ত পরীক্ষা দিয়ে মূত্রনালি সমুহের অবস্থা নির্ণয় করা হয়
  • CT scan of the abdomen
  • Intravenous pyelogram (IVP)
  • Kidney scan
  • Kidney ultrasound
  • Voiding cystourethrogram
চিকিৎসা
    রোগের লক্ষন দেখা দিলেই চিকিৎসকগণ মুখে অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে থাকেন যাতে ইনফেকশন কিডনি পর্যন্ত ছড়াতে না পারে।
  • মনে রাখতে হবে লক্ষন সমূহ ভালো হয়ে গেলেও অ্যান্টিবায়োটিকের সম্পুরন কোর্স শেষ করতে হবে অন্যথায় রোগটা আবার হবার আশংকা থেকে যাবে এবং সেক্ষেত্রে চিকিৎসা করে রোগ সারানো দুরূহ হয়ে যাবে।
  • মুত্রথলির ইনফেকশন হলে মহিলাদের ৩দিনের অ্যান্টিবায়োটিক খেতে হবে এবং পুরুষের ক্ষেত্রে অ্যান্টিবায়োটিক ৭-১৪ দিন খেতে হবে। মুত্রথলির ইনফেকশনের সাথে ডায়াবেটিকস থাকলে বা কিডনি আক্রান্ত হয়ে থাকলে সবারই ৭-১৪ দিন অ্যান্টিবায়োটিক খেতে হবে।
সাধারণত ব্যবহৃত অ্যান্টিবায়োটিক গুলো হলো trimethoprim-sulfamethoxazole, amoxicillin, doxycycline, and fluoroquinolones. রোগী গর্ভবতী কিনা তা ডাক্তারকে জানাতে হবে। ডাক্তাররা অনেক সময় প্রস্রাবের সময়কার জ্বালা যন্ত্রণা কমানোর জন্য এবং প্রস্রাব করানোর জন্য Phenazopyridine hydrochloride ঔষধ ব্যবহার করে থাকেন।সেক্ষেত্রেও রোগীদের অ্যান্টিবায়োটিক এর প্রয়োজন হবে। কিডনি এবং মুত্রথলির ইনফেকশনের রোগীদের প্রচুর পানি পান করতে হবে।

কিছু মহিলাদের বারবার মুত্রথলির ইনফেকশন হয়।তাদের ক্ষেত্রে ডাক্তাররা ভিন্ন উপায়ে চিকিৎসা করে থাকে যেমন
  • দৈহিক মিলনের পর একটি অ্যান্টিবায়োটিক single dose খেতে পারেন।
  • লক্ষন ধরা পড়লে বাড়ীতেই ওই সমস্ত মহিলারা ৩দিনের অ্যান্টিবায়োটিকের একটি কোর্স খেতে পারেন।
  • কিছু মহিলারা দৈনিক ১টা করে অ্যান্টিবায়োটিক খেয়ে ইনফেকশন রোধ করতে পারেন।
যদি কেউ খুবই অসুস্থ থাকেন অথবা মুখে ঔষধ বা বেশি পানি পান করতে না পারেন তবে তাদের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে।

এছাড়া নিম্নোক্ত
ব্যক্তিরাও হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিতে হবে
  • বয়স্করা
  • কিডনিতে পাথর থাকলে
  • সাম্প্রতিক সময়ে মুত্রনালিতে কোন অপারেশন হলে।
  • cancer, diabetes, multiple sclerosis, spinal cord injury, অথবা অন্যকোন সমস্যা থাকলে।
  • গর্ভবতী মহিলাদের জ্বর থাকলে।
হাসপাতালে ভর্তি হলে রোগীদের fluids এবং অ্যান্টিবায়োটিক শিরায় দেওয়া হয়।
কিছু মানুষের ঔষধ খেলেও রোগ ভালো হয় না অতবা বারবার হয় তবে তাকে বলা হয় chronic UTIs. যদি কারো chronic UTI হয়ে থাকে তবে তাকে শক্তিশালী অ্যান্টিবায়োটিক কয়েকমাস খেতে হবে।
যদি গঠনগত কোন সমস্যা থাকে তবে অপারেশন করতে হতে পারে।

আরোগ্যসম্ভাবনা
মুত্রথলির ইনফেকশন খুবই অসস্থিদায়ক কিন্ত চিকিৎসা করলে তা সম্পূর্ণ ভালো হয়ে যায়। চিকিৎসা শুরু করার ২৪-৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রোগের লক্ষন গুলো সম্পূর্ণ ভালো হয়ে যায়।তবে কিডনিতে ইনফেকশন হলে লক্ষন ভালো হতে ১ সপ্তাহ লাগতে পারে।

চিকিৎসা না করলে কি কি হতে পারে
  • রক্তে ইনফেকশন ছড়িয়ে যেতে পারে। (sepsis) – এটা হতে পারে বয়স্কদের এবং যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম যেমন HIV অথবা cancer chemotherapy রোগীদের।
  • কিডনি নষ্ট হতে পারে Kidney damage or scarring
  • কিডনি ইনফেকশন
কখন ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন
  • পেটের পিছনে বা পাশে ব্যথা হলেBack or side pain
  • কাপুনি দিয়ে জ্বর হলে
  • বমি হলে
এগুলো কিডনির ইনফেকশনের লক্ষন। These may be signs of a possible kidney infection.
অথবা আপনার মুত্রথলির ইনফেকশন আছে এবং ঔষধ খাওয়ার কিছুদিনের মধ্যে আবার লক্ষন আরম্ভ হলে।

Lifestyle পরিবর্তন করেও মূত্রনালির ইনফেকশন কমানো যায়
  • Menopause এর পরে মহিলারা estrogen cream যোনিতে vagina ব্যবহার করলে ইনফেকশন হওয়ার সুযোগ কমে যায়।
  • গোসল এবং পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা
    • কাপড়ের পরিবর্তে sanitary pad ব্যবহার করতে হবে।
    • মিলনের আগে ও পরে লজ্জাস্থান ভালো করে পরিস্কার করতে হবে।
    • দৈহিক মিলনের আগে এবং পরে প্রস্রাব করতে হবে।
    • Bathroom করার পর প্রচুর পানি ব্যবহার করতে হবে
  • জামাকাপড়
    • আঁটসাঁট প্যান্ট পরা যাবে না।
    • সুতির underwear অথবা pantyhose প্রতে হবে এবং তা প্রতিদিনের টা প্রতিদিন ধুতে হবে।
  • খাবার
    • প্রচুর পানি পান করতে হবে (২-৪ লিটার দৈনিক).
    • আমন পানীয় পান করা যাবে না যা মুত্রনালিতে প্রদাহ সৃষ্টি করে,যেমন alcohol এবংcaffeine.

Share:  


© www.ousud.com, All rights reserved.