Chikungunya Fever - What you need to know

Category: Diseases
17 May, 2017  

Share:  

Ib9aod2l চিকুনগুনিয়া Chikungunya এক ধরনের সংক্রামক রোগ যা চিকুনগুনিয়া ভাইরাসের মাধ্যমে হয়ে থাকে।
চিকুনগুনিয়া ভাইরাসের অবস্থান মূলত আফ্রিকা, দক্ষিণ - পূর্ব এশিয়া,ভারতীয় উপমহাদেশ এবং ভারত মহাসাগর দ্বীপপুঞ্জ, যেখানে বেশ কয়েকটি প্রাদুর্ভাব ইতিমধ্যে ঘটেছে।

চিকুনগুনিয়া (chikungunya) কিভাবে ছড়ায়?
মানুষ এবং অন্যান্য স্তন্যপায়ী প্রাণী প্রাকৃতিক কারনেই সহজেই চিকুনগুনিয়া ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয়ে থাকে। চিকুনগুনিয়া ভাইরাস মানুষের মধ্যে ছড়ায় এডিস মশা যেমন Aedes aegypti অথবা Aedes albopictus মশার কামড়ের মাধ্যমে।ডেঙ্গু ভাইরাস বহনকারী গ্রীষ্মমন্ডলীয় tropical এবং উপ-ক্রান্তীয় sub-tropical অঞ্চলের মশাই মূলত চিকুনগুনিয়া ভাইরাস বহন করে থাকে।এই জাতীয় মশারা মানুষের বসতবাড়ির আসে পাশেই বংশবিস্তার করে এবং দিনের বেলায় ছায়াযুক্ত স্থানে কিংবা সন্ধ্যায় মানুষকে কামড় দিয়ে থাকে এবং রোগ বিস্তার করে।
অস্ট্রেলিয়াতে ইদানিং Aedes aegyptiমশা উত্তর কুইন্সল্যান্ডে পাওয়া গেছে এবং Aedes albopictus মশা টরস স্ট্রেটের কিছু এলাকায় পাওয়া গেছে।
লক্ষণ ও উপসর্গ
  • মাত্রাতিরিক্ত জ্বর
  • প্রধানত গিরায় ব্যথা মূলত হাতে এবং পায়ে।
  • মাথা ব্যাথা
  • পেশী ব্যথা
  • পিঠে ব্যাথা
  • ফুসকুড়ি (প্রায় ৫০% আক্রান্ত রোগীর শরীরে দেখা যায়)
অধিকাংশ রোগী ৭ থেকে ১০ দিন পর সুস্থতা অনুভব করলেও অনেকে দীর্ঘমেয়াদী গিরার ব্যথায় আক্রান্ত হয়ে থাকে।

পরীক্ষা সমুহ
  • RT-PCR
    Reverse transcriptase-polymerase chain reaction (RT-PCR) পরীক্ষার মাধ্যমে খুব সহজেই রক্তে ভাইরাসের উপস্থিতি নির্ণয় করা যায়।
  • ELISA
    Enzyme-linked immunosorbent assays (ELISA) পরীক্ষার মাধ্যমে anti-CHIKV immunoglobulin (Ig) M এবং IgG এন্টিবডি নির্ণয় করা যায়।
  • Immunofluorescence assays
    Immunofluorescence assays নির্দিষ্ট এবং সংবেদনশীল পরীক্ষা।
  • PRNT
    Plaque reduction neutralization tests (PRNT) এর মাধমেও এই রোগ সহজেই নির্ণয় করা সম্ভব।
  • Haemagglutination-inhibition tests
    ভাইরাস নির্ণয়ের আরেকটি পরীক্ষা হচ্ছে Haemagglutination-inhibition tests
রোগ বিস্তারের সময়কাল
আক্রান্ত হওয়া থেকে লক্ষন সমুহ প্রকাশের সময়কাল (Incubation period) মুলত ৩-৭ দিন।
যে সময়ে আক্রান্ত রোগীদের থেকে অন্য মানুষের মধ্যে রোগটা ছড়ায় (Infectious period), চিকুনগুনিয়া Chikungunya ভাইরাস সরাসরি মানুষ থেকে মানুষে ছড়াতে পারে না।

চিকিৎসা
চিকুগুনীয় ভাইরাসের প্রতিষেধক কোন টিকা নেই। লক্ষণ সমুহের চিকিতসা:
  • প্রচুর বিশ্রাম নিতে হবে।
  • পানিশূন্যতা রোধের জন্য প্রচুর পানি পান করতে হবে।
  • জ্বর এবং ব্যথা নিরাময়ের জন্য প্যারাসিটামল বা ব্যথা নাসক NSAID সেবন করা যেতে পারে।
  • Dengu ডেঙ্গু জ্বর না Chikungunya চিকুনগুনিয়া জ্বর তা নিশ্চিত হবার আগে ASPIRIN বা অন্যান্য NSAID সেবন করা উচিত না এতে রক্তক্ষরণের সম্ভাবনা অনেকাংশে বেড়ে যাবে।
  • যদি আপনি অন্য কোনও চিকিৎসার জন্য ঔষধ গ্রহণ করে থাকেন, অতিরিক্ত ঔষধ গ্রহণের আগে আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহন করুন।
  • আপনার যদি চিকুনগুনিয়া থাকে তবে আপনার অসুস্থতার প্রথম সপ্তাহে মশা কামড় থেকে বিরত থাকার চেষ্টা করুন এতে রোগ ছড়ানোর সম্ভাবনা কবে যাবে।
  • রোগ সংক্রমণের প্রথম সপ্তাহে, চিকুগুনীয় ভাইরাসটি রক্তে পাওয়া যায় এবং এই সময়ে মশার কামড়ের মাধ্যমে সংক্রমিত ব্যক্তি থেকে মশা অন্য সুস্থ শরীরে রোগটা ছড়াতে পারে।

Share:  


© www.ousud.com, All rights reserved.